২৩শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, শনিবার

শিরোনাম

ঢাকা দুই এমপিকে ‘লাস্ট ওয়ার্নিং’ সরকারি নীতি নির্ধারকদের

আপডেট: জানুয়ারি ১০, ২০২১

বিতর্কিত কর্মকাণ্ড থেকে বিরত থাকার নির্দেশ দেয়া হয়েছে ঢাকার দুই সংসদ সদস্যকে। আওয়ামী লীগের হাইকমান্ড থেকে বলা হয়েছে, এটা তাদের জন্য লাস্ট ওয়ার্নিং। ভবিষ্যতে এধরনের কর্মকাণ্ডে জড়ালে তাদের বিরুদ্ধে দলীয় শৃংখলা ভঙ্গের অভিযোগ আনা হবে। এজন্য সাময়িক বহিষ্কারসহ শাস্তির মুখে পরতে হবে। আওয়ামী লীগের টিকেটে ঢাকা থেকে নির্বাচিত ঐ দুইজন সংসদ সদস্যের বিরুদ্ধেই সরকারি জমি দখলের অভিযোগ আছে। এই দুই সংসদ সদস্য হলেন লালবাগ থেকে নির্বাচিত এমপি হাজী সেলিম এবং মীরপুর থেকে নির্বাচিত এমপি আসলামুল হক।

আওয়ামী লীগের একজন প্রভাবশালী প্রেসিডিয়াম সদস্য বাংলা ইনসাইডারকে বলেছেন ‘এদের নিয়ে দলের নীতি নির্ধারক পর্যায়ে আলোচনা হয়েছে। ভবিষ্যতে বাড়াবাড়ি করলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার সিদ্ধান্তও নেয়া হয়েছে। ঐ সিদ্ধান্ত তাদের জানিয়ে দেয়া হয়েছে।’

হাজী সেলিমের বিরুদ্ধে দীর্ঘদিন ধরেই সরকারি জমি এবং বুড়িগঙ্গা অবৈধ দখলের অভিযোগ ছিলো। তার ছেলে ইরফান সেলিম গ্রেফতার হবার পর তার অবৈধ দখলে থাকা সম্পদ উদ্ধারে উদ্যোগ নেয়া হয়। এসময় হাজী সেলিমের পক্ষ থেকেও অবশ্য বাধা দেয়া হয়নি। জানা গেছে, পুত্রের গ্রেপ্তার, স্ত্রীর মৃত্যু এসব ঘটনার পর অনেকটাই নিস্পৃহ হয়ে পরেছেন একদা প্রভাবশালী এই সংসদ সদস্য। ঢাকার অপর এমপি আসলামুল হক অবশ্য সব সময়ই দাবি করে আসছেন, তিনি এক চিলতে জমিও অবৈধ দখল করেন নি। সব জমিই কিনেছেন।

এখন অন্যায়ভাবে তার জমি নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয় অবৈধ বলছে। কিন্তু নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয় বলছে, বিআইডাব্লিউটিএ যথাযথ জরীপ এবং পরীক্ষা করেই প্রমাণিত হয়েছে যে, আসলামুল হক নদী দখল করে পাওয়ার প্লান্ট করেছেন। নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয় বলছে, আসলামুল হক যে ভুল তা সর্বোচ্চ আদালতে প্রমাণিত হয়েছে। জানা গেছে, আসলামই এ বিষয়টি সরকারের হাইকমান্ডের কাছে উত্থাপন করেছিলেন। সূত্র মতে, আসলামকে এনিয়ে বাড়াবাড়ি না করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। সরকারি নীতি নির্ধারকদের কঠোর সতর্কবার্তার পর দুই এমপিও এখন নিজেদের গুটিয়ে নিয়েছেন। সূত্রঃ বাংলা ইনসাইডার